৪০০ বছর পরেও অনন্য তুরস্কের ‘নীল মসজিদ’

নান্দনিক স্থাপত্যের অনন্য নিদর্শন তুরস্কের ইস্তাম্বুল নগরীতে অবস্থিত নীল মসজিদ। এর আসল নাম ‘সুলতান আহমেদ মসজিদ’ হলেও এটি ‘ব্লু মস্ক’ বা ‘নীল মসজিদ’ নামে অধিক পরিচিত। ব্লু মসজিদ যেন ইস্তাম্বুল তথা গোটা তুরস্কেরই প্রতীক।

মসজিদটির নির্মাণ কাল ১৬০৯ থেকে ১৬১৬ সালের মধ্যে প্রথম আহমেদের শাসনামলে। এর পাশেই অবস্থিত তুরস্কের আরেক জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র হাজিয়া সোফিয়া জাদুঘর যা প্রথমে গির্জা, পরে মসজিদ ছিল। ৪০০ বছর পরও তুরস্কের ব্লু মসজিদ আজো পৃথিবীর সুন্দর মসজিদের স্থানে গৌরবের সাথে তালিকাভুক্ত হয় নানা কারণে।

এর ঐহিহাসিক গুরুত্ব, ধাপে ধাপে (কাসকেডিং) সাজানো গম্বুজ, ছয়টি মিনার, বিশাল সাহান, উচ্চ মূল্যবান সিলিং, অনেক দূর থেকেও দৃশ্যমান হওয়া, গাছাগাছালি ঘেরা এর চারপাশের বিশাল খোলামেলা পরিবেশ, পার্র্ক সাজানো রাস্তা, বাড়িঘর, নীল জলাধাররের ফোয়ারা, মসজিদের অভ্যন্তরীণ হাতের কাজ সব মিলিয়ে ইংরেজিতে প্লেস অব ম্যাজিক অ্যান্ড ওয়ান্ডার হিসেবে পরিচিত এ মসজিদ।

বাইজানটাইন শাসকদের প্রাসাদের পাশে হাজিয়া সোফিয়া মসজিদের সামনে অবস্থিত ব্লু মসজিদ। এ মসজিদের আশপাশে রয়েছে আরো অনেক ঐতিহাসিক স্থাপনা। এক সময় এলাকাটি বাইজানটাইন শাসকদের রাজপ্রাসাদ ছিল এবং এর বিশাল খোলা পরিবেশ দীর্ঘকাল পরও বজায় রাখতে সক্ষম হয়েছে তুুরস্ক কর্তৃপক্ষ।

এটিকে শুধু মসজিদ বললে ভুল হবে। দীর্ঘকাল ধরে তুরস্কের অন্যতম পর্যটন কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে এ মসজিদ। মুসলমান ছাড়াও বিভিন্ন ধর্মের হাজার হাজার লোকজন প্রতিদিন এ মসজিদ দেখতে আসেন।

মসজিদের মুসল্লি ধারণ ক্ষমতা ১০ হাজার। দৈর্ঘ ২৪০ ফুট, প্রস্থ ২১৩ ফুট, প্রধান গম্বুজের উচ্চতা ১৪১ ফুট। মিনারের উচ্চত ২১০ ফুট।